একটি ছবি এবং আমাদের অনভ্যস্ত চোখ- কামরুল হাসান বাদল লেখক কবি ও সাংবাদিক

পোস্ট করা হয়েছে 25/07/2018-10:58am:    ফেসবুক মাঝেমধ্যে আতংকের কারণ হয়ে ওঠে। খুললেই কারো মৃত্যুর সংবাদ, মৃত মানুষের ছবি, রক্তাক্তা বীভৎস ছবি দেখে বিচলিত হয়ে পড়ি। অনেকে আত্মীয়-স্বজনের অসুস্থ অবস্থার ছবি আপলোড করে লেখেন- দোয়া চাই।
হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারে অক্সিজেনের মাস্ক লাগানো ছবি লোড করে লেখেন- দোয়া চাই। নাকে-মুখে অসংখ্য পাইপ, বুকে ইসিজির যন্ত্রপাতি লাগানো ছবিও দিব্যি লোড করে দেওয়া হয়। অপারেশনের আগে বা পরের অচৈতন্য অবস্থায় ছবিও খুব স্বাভাবিকভাবে ফেসবুকে আপলোড করেন অনেকে। অনেকে আবার এককাঠি সরেস। নিজেই নিজের ছবি আপলোড করে পোস্ট দেন-একটু পরে অপারেশন। অনেকে নিজের রক্তাক্ত বা আহতাবস্থার ছবিও লোড করে দিচ্ছেন।
বাংলাদেশে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রচুর। তবে এদের অধিকাংশই ফেসবুকের সঠিক ব্যবহারটি জানেন না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সঠিক ব্যবহার না জানার কারণে মৃত শিশুর ছবি দিয়ে দিনের পর দিন পোস্ট দিয়ে যান অনেকে। এদের অধিকাংশই জানেন না অথবা জানলেও বুঝতে চান না এ ধরনের ছবি একজন দুর্বলচিত্ত, অসুস’-বয়স্ক ব্যক্তি ও কোমলমতি শিশুদের মনে কী ধরনের প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। মানসিকভাবে কতটা বিপর্যস্ত করে।
আমি ফেসবুক ব্যবহার করি। ফলে আমাকেও প্রতিদিন এমন ছবি দেখতে হয়। দেখে দেখে আহত হতে হয়। অনেকে মাঝেমধ্যে এনিয়ে বিরক্তি প্রকাশ করেন। এমন ছবি ফেসবুকে পোস্ট না করতে অনুরোধ করেন। কিন’ কে শোনে কার কথা। করুণ, হৃদয়বিদারক, স্পর্শকাতর ছবি পোস্ট করা থেকে যাদের বিরত থাকার অনুরোধ জানানো হয় তারা তা শোনেন না এবং যথারীতি এমন ছবি পোস্ট করে থাকেন। এছাড়া অসংখ্য নেতিবাচক সংবাদতো আছেই ফেসবুক জুড়ে।
এই যখন পরিসি’তি তখন একটি ছবি আমাকে ভীষণ নাড়া দিয়েছে। মৃত, অর্ধমৃত, অসুস’, রক্তাক্ত, বীভৎস ছবি দেখতে দেখতে হঠাৎ এই ছবিটি আমাকে প্রাণিত করেছে। ছবিটি প্রাণের ছবি, জীবন্ত ছবি, জীবনের ছবি, ভালোবাসার ছবি।
এই ছবিটি ভাইরাল হয়েছে। গত দুদিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবিটির হাজার কয়েক শেয়ার হয়েছে। ফেসবুকের নিউজফিড ভেসে যাচ্ছে সে ছবিতে। ছবিটি খুবই স্বাভাবিক সাদামাটা একটি ছবি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) সামনে সিঁড়িতে বসা অবস’ায় একজোড়া তরুণ-তরুণী পরস্পরকে চুম্বন করছে। তাদের পেছনে একটি টংয়ের চায়ের দোকান। সেখানে তিন ব্যক্তিকে দেখা যাচ্ছে। যাদের ভেতর কোনো প্রতিক্রিয়া নেই। তারা স্ব স্ব কাজ নিয়ে ব্যস্ত।
ছবিটি প্রথম পোস্ট করেছেন এই ছবির আলোকচিত্রী নিজেই। এরপরই ছবিটি ভাইরাল হয়ে পড়ে। এক প্রকার তোলপাড় পড়ে গেছে এই ছবিটি নিয়ে। অনেকে ব্যঙ্গ করছেন, ট্রল করছেন এবং অনেকে সাধুবাদও জানিয়েছেন। কিন’ আমি ভেবে পেলাম না একটা সাধারণ ছবি, স্বাভাবিক ও সুস্থ একটি ছবি তা নিয়ে এত মাতামাতি এবং হৈ চৈ করার কী আছে। এটাকে খারাপ বা নেতিবাচকভাবে দেখারওবা কী আছে।
সমস্যাটি হচ্ছে এমন দৃশ্য দেখতে বাঙালির অনভ্যস্ততা অর্থাৎ বাঙালি এমন দৃশ্য দেখতে অভ্যস্ত নয়। ফলে এই দৃশ্যকে অশ্লীল, অশোভন এবং অমার্জিত মনে করছেন কেউ কেউ। এ দেশে প্রকাশ্যে, জনসম্মুখে, ব্যস্ত সড়কের পাশে মূত্রত্যাগের দৃশ্য যতটা স্বাভাবিক প্রকাশ্যে চুম্বনের দৃশ্য ততটা স্বাভাবিক নয়। এদেশে প্রকাশ্যে নারী ও শিশুদের নির্যাতন করার দৃশ্য যতটা স্বাভাবিক ভালোবাসা প্রকাশের দৃশ্য ততটা নয়। এ দেশে প্রকাশ্যে নারীর অবমাননা, নারীর দেহে হাত দেওয়া, যতটা স্বাভাবিক প্রিয় নারীকে ভালোবাসার দৃশ্য ততটা স্বাভাবিক নয়। এখানে প্রকাশ্যে অনেক অশোভন আচরণ করা যায় কিন্তু প্রেমিক কিংবা প্রেমিকাকে ভালোবেসে চুম্বন করা যায় না।
বাঙালির চোখে এমন দৃশ্য মানানসই নয়। বাঙালি প্রকাশ্যে ঘুষ নিতে এবং দিতে দেখতে অভ্যস্ত। দিবালোকে সড়কের পাশে ব্যস্ততম সময়ে গাড়ির চালক থেকে পুলিশের চাঁদা আদায়ের দৃশ্য দেখতে অভ্যস্ত। রিকশাচালককে চড়-থাপ্পড় মারা দেখতে অভ্যস্ত। প্রকাশ্যে ছিনতাই, চাঁদাবাজি দেখতে অভ্যস্ত। ফুটপাতের দোকানদারদের কাছ থেকে প্রকাশ্যে চাঁদা আদায়ের দৃশ্য দেখতে অভ্যস্ত। তারা প্রকাশ্যে ভালোবাসা, চুম্বন এবং আলিঙ্গনের দৃশ্য দেখতে অভ্যস্ত নয়। ছবিটি নিয়ে এখন অন্য বিতর্কও হচ্ছে। কেউ কেউ প্রশ্ন তুলেছেন এতে তরুণ-তরুণীকে সামাজিক ও পারিবারিকভাবে বেকায়দায় পড়তে হতে পারে। অনুমতি না নিয়ে কারো ছবি পোস্ট কিংবা প্রচার করা কতটা ন্যায়সঙ্গত তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।
ছবিটি তুলেছেন জীবন আহমেদ। পেশায় তিনি চিত্রসাংবাদিক। অ্যাসাইনমেন্ট ছিল বৃষ্টির ছবি তোলার। এই কাজে টিএসসি এলাকায় এসেছিলেন। হঠাৎ চোখে পড়ে দৃশ্যটি। হালকা বৃষ্টিতে ভিজছে এক জুটি। খুব স্বাভাবিক দৃশ্য। প্রকাশ্যে চুম্বনের এই দৃশ্য ধারণ করলেন তিনি। পাঠালেন অফিসে আর পোস্ট করলেন নিজের ফেসবুক ওয়ালে। ক্যাপশন দিলেন, ‘বর্ষামঙ্গল কাব্য-ভালোবাসা হোক উন্মুক্ত’। তারপর তোলপাড়। পাঁচঘণ্টায় লাইক পড়ে ছয় হাজার। হাজারের ওপর কমেন্ট এবং সেসময় পর্যন্ত শেয়ার হয়েছে আড়াই হাজার। অনুমতি গ্রহণ ছাড়া ছবি আপলোড করে সমালোচিত জীবন আহমেদ একটি নিউজ পোর্টালকে বলেছেন, ‘কে কীভাবে নিল সেটা তাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার। প্রত্যেকের ব্যক্তিগত মতামত থাকতেই পারে। যেকোনো ছবির ভালো খারাপ দুটি দিকই থাকে। যে যেভাবে গ্রহণ করে। তবে এই ছবি বেশিরভাগ মানুষই ভালোভাবে গ্রহণ করেছে। এবং নির্মল ভালোবাসার বহিপ্রকাশ হিসেবেই দেখছে। জীবন আরও বলেন, ‘প্রকাশ্য ভালোবাসায় নোংরামি থাকতে পারে না। ছবিটি দেখলে খেয়াল করবেন তাদের শরীরী ভাষায় শুধুই ভালোবাসা এবং তাদের সততার বিষয়টিও স্পষ্ট’।
ভালোবাসা চিরন্তন একটি বিষয়। নিখাদ ভালোবাসা প্রকাশে সংকোচ থাকারও প্রয়োজন নেই। আমাদের সমাজে শঠতা, কপটতা, কৃত্রিমতা আছে বলে আমরা একটি সহজ স্বাভাবিক ও সুস্থ বিষয় নিয়ে বিতর্ক করছি। তারমানে আমাদের সমাজটি এখনো যথাযথ ‘ম্যাচিউরড’ হয়ে ওঠেনি। কোন আচরণটি প্রকৃতপক্ষে শোভন, শালীন তা আমরা বুঝতে শিখিনি। মিথ্যা শাসনে নিজেদের আবদ্ধ রাখছি। অযথাই নিজেদের কুণ্ঠিত করে রেখেছি। জীবনের যে রং, যে আলো, জীবনের যে আনন্দ তা উপভোগ করা থেকে, উদযাপন করা থেকে নিজেদের বিরত রাখছি। আমরা লুকিয়ে পরনারীর শরীর দেখি, নাইটক্লাবে গিয়ে নারীসাহচর্য খরিদ করি কিন’ প্রকাশ্যে ভালোবাসার কথা বলতে কুণ্ঠাবোধ করি। নিজের প্রিয়জনদের কাছে নিজেকে অধরা করে রাখি। নিজের চারপাশে একটি কৃত্রিম দেয়াল তৈরি করে নিজের মধ্যে ভণ্ডামি পুষে রাখি।
আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন হোক। রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দেওয়ার মতো বিষয়টিকে লজ্জা বলে ভাবতে থাকি আর সে সাথে তরুণ-তরুণী বা যে কোনো বয়সের লোকদের ভালোবাসাকে, তার প্রকাশকে শোভন, যৌক্তিক এবং সুন্দরতম দৃশ্য বলে ভাবতে চেষ্টা করি। যারা ভালোবাসতে জানে তারা খুনি হতে পারে না। যারা ভালোবাসতে জানে তারা ধর্ষক ও নির্যাতনকারী হতে পারে না।

সর্বশেষ সংবাদ
স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত যেকোনো অনিয়ম দুর্নীতি অনুসন্ধান করা হবে: দুদক চেয়ারম্যান কক্সবাজার রেড জোন,শনিবার থেকে আবারো লকডাউন এবার ঘরে বসে তৈরি করুন জিভে জল আনা কাঁচাআমের জুস সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সফল অস্ত্রোপচার, দোয়া কামনা চট্টগ্রামের -১৬ বাঁশখালীর এমপিসহ পরিবারের ১১ সদস্য করোনা আক্রান্ত সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের শারীরিক অবস্থার অবনতি দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্র্ধ্বগতিতে জনদুর্ভোগ এখন চরমে আজ বছরের দ্বিতীয় চন্দ্রগ্রহণ পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর হওয়ার নি‌র্দেশ আইজিপি’র  তথ‌্যমন্ত্রী  ড. হাছান মাহমুদ এমপি র  শুভ জন্মদিনে শুভ কামনা।