বাঙালির মার্চ-অগ্নিঝরা মার্চ--কামরুল হাসান বাদল, লেখক,কবি, সাংবাদিক ও টিভি ব্যক্তিত্ব

পোস্ট করা হয়েছে 01/03/2018-11:44am:    শত শত বছরেও একটি জাতি গঠিত হয় না। এর জন্য প্রয়োজন হাজার বছর। কয়েক হাজার বছর ধরে একটি অঞ্চলের জল মাটি আবহাওয়ায় ধীরে ধীরে একটি জাতির রূপ গঠিত হতে থাকে। বাঙালি জাতিরও তাই। তবে বাঙালি একটি শংকর জাতি। বিভিন্ন জাতি ও জনগোষ্ঠীর সংমিশ্রণ হাজার বছর ধরে বাঙালি জাতি বর্তমান অবস্থানে এসে দাঁড়িয়েছে। বিশ্বের কোনো কিছুই স্থির নয়, তেমনি বাঙালি জাতির চলমান বিবর্তনও থেমে নেই। থাকবে না। এক হাজার বছর পূর্বে বাঙালি জাতির যে বৈশিষ্ট ছিল তার পরিবর্তন ঘটেছে। ভবিষ্যতেও বিবর্তনের ধারায় বাঙালির বর্তমান অনেক বৈশিষ্ট্য লোপ পাবে। নতুন অনেক কিছু যোগ হবে। তা তার ভাষায়, সংস্কৃতিতে জীবনযাপন, পোশাক পরিচ্ছদ ও খাদ্যাভ্যাসে। তবে বাঙালির পরিবর্তনের কিছু ঘটনা তার দীর্ঘ ইতিহাসের অনেক গৌরবজনক অধ্যায় রচিত হয়েছে কেবল গত শতকের শেষভাগে এসে। ১৯৭১ সাল বাঙালির ইতিহাসে সবচেয়ে উজ্জ্বলতম কাল, সংগ্রাম ও সফলতার কাল, অহংকার ও গৌরবের কাল। এ সময়েই বাঙালি অর্জন করে তার প্রথম স্বাধীন ভূখণ্ড। একটি পতাকা আর একটি মানচিত্র। এর মাধ্যমে প্রথমবারের মতো বাঙালি নিজেকে নিজে শাসন করার সুযোগ ও সৌভাগ্য অর্জন করে। গত শতকের ৫০, ৬০ ও ৭০ দশক ছিল বাঙালির কয়েক হাজার বছরের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং সোনালী কাল। ১৯৪৭ সালের দেশভাগ মূলত ক্ষমতার পালা বদল করেছিল এ ভূখণ্ডে। ফলে প্রকৃত স্বাধীনতা অর্জন তখনও ছিল বড় দুর্জেয় একটি কাজ। কিন্তু ভাষা আন্দোলনের সফলতা ও বিস্তার বাঙালি জাতীয়তাবাদের অংকুরোদগম করে এবং বাঙালি স্বপ্ন দেখতে শুরু করে একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের।https://www.facebook.com/photo.php?fbid=2001044923482960&set=a.1473924772861647.1073741829.100007324159269&type=3&theater

সর্বশেষ সংবাদ