শিক্ষার লক্ষ্য ওজনদার সার্টিফিকেট নয়

পোস্ট করা হয়েছে 09/09/2016-06:21pm:    খন রঞ্জন রায় লেখক ও প্রকাশক: ১৭ সেপ্টেম্বর শিক্ষা দিবস। শিক্ষা ব্যবস্থায় নানামুখী সঙ্কটের মধ্য দিয়ে পালিত হয় মহান শিক্ষা দিবস। পাকিস্তান সরকারের গণবিরোধী, শিক্ষা সংকোচনমূলক শিক্ষানীতি চাপিয়ে দেয়ার প্রতিবাদে এবং একটি গণমুখী শিক্ষানীতি প্রবর্তনের দাবিতে ১৯৬২ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর ছাত্র-জনতার ব্যাপক গণআন্দোলনের রক্তাক্ত স্মৃতিবিজড়িত দিনের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। আজ থেকে অর্ধ শত বছর আগে তৎকালীন পাকিস্তানি সামরিক শাসক আইয়ুব খানের চাপিয়ে দেয়া ‘শরীফ কমিশনে’র শিক্ষানীতি প্রতিহত করতে গড়ে উঠেছিল ছাত্র আন্দোলন। ছাত্র ইউনিয়নের নেতৃত্বাধীন ‘অল পার্টি স্টুডেন্ট অ্যাকশন কমিটি’ দেশব্যাপী হরতাল কর্মসূচির ডাক দেয়। ছাত্র জনতার আন্দোলনকে দমাতে পাকিস্তানি সামরিক জান্তা লেলিয়ে দেয় পুলিশ বাহিনী। তারই এক পর্যায়ে ১৭ সেপ্টেম্বর হাইকোর্ট মোড়ে ছাত্রদের মিছিলে পুলিশ গুলি চালায়। এতে মোস্তফা, বাবুল, ওয়াজীউল্লাহ প্রমুখ শহীদ হন। সেই থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও ছাত্র সংগঠন প্রতি বছর এ দিনটিকে ‘মহান শিক্ষা দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে। বর্তমানে দেশে শিক্ষায় অংশগ্রহণের পরিমাণ আগের চেয়ে বেড়েছে। কিন্তু এর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে কমেনি বেকারত্বের সংকট। বরং শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা আগের চেয়ে বাড়ছে ক্রমেই। চাকরির বাজারের চাহিদার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ না হওয়ায় দেশের প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থা তরুণদের চাকরির সুযোগ সৃষ্টিতে ব্যর্থ হচ্ছে। শিক্ষা ব্যবস্থা ও চাকরির বাজারের লক্ষ্যের সমন্বয়ের দিক থেকে সারা বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ১০০ তম। সম্প্রতি প্রকাশিত ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের মানবসম্পদ-বিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। শিক্ষাহীন কর্ম বনাম কর্মহীন শিক্ষা নিয়ে বিতর্ক উস্কে দিচ্ছে। শিক্ষা ও কর্মসংস্থান নীতিমালায় লক্ষ্যগত অমিলের এ প্রভাব পড়ছে দেশের অর্থনীতিতেও। অর্থ মন্ত্রণালয়ের ‘দক্ষতা উন্নয়ন: উচ্চতর প্রবৃদ্ধি অর্জনের অগ্রাধিকার’ শীর্ষক প্রতিবেদন অনুযায়ী, দেশের শিল্প কাজে বিশেষজ্ঞ, দক্ষ শ্রমিক ও ব্যবস্থাপকের অভাব রয়েছে। প্রতি বছর প্রায় ৫০০ কোটি টাকা বিদেশীদের বেতন ভাতা বাবদ দিতে হচ্ছে। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় কাক্সিক্ষত দক্ষ জনগোষ্ঠীর অভাবে বড় অঙ্কের এ অর্থ বিদেশে চলে যাচ্ছে। বিভিন্ন পর্যায়ের শিক্ষার প্রসারে গেল এক দশকে দেশে শিক্ষিতের সংখ্যা বেড়েছে বহুগুণ। তবে শিক্ষা ও কর্মবাজারের সমন্বয়হীনতায় শিক্ষিতদের মধ্যে বাড়ছে বেকারত্ব। ইকোনমিষ্ট ইনটেলিজেন্স সম্প্রতি বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, শ্রীলংকা ও আফগানিস্তানের উচ্চ শিক্ষা ব্যবস্থা, শিক্ষার মান ও চাকরির বাজারে øাতক ডিগ্রিধারীদের অবস্থান বিষয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরি করে। এতে দেখানো হয়, শিক্ষিত বেকারের তালিকায় দক্ষিণ এশিয়ায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। øাতক পাশের পর দেশটির ৪৭ শতাংশ শিক্ষার্থী চাকরি পায় না। লেখাপড়া জানা মানুষগুলো মোটামুটি ৩০ বছর পর্যন্ত থাকে অভিভাবকের ওপর নির্ভরশীল, তদুপরি অনেকেই চাকরি বা বিদেশে পাড়ি জমানোর লক্ষ্যে ‘সিস্টেম’ বাবদ ১০-১৫ লাখ টাকা তহবিলের যোগান দিতে হয় অভিভাবকে। এতে অভিভাবকের শিক্ষা আকাক্সক্ষা ভূলুণ্ঠিত হয়। প্রশ্ন জাগতে পারে, আমরা কি তাহলে উচ্চ শিক্ষার বিপক্ষে? অবশ্যই না। আমাদের দাবী যারা উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের মতো যথেষ্ট মেধাবী, রাষ্ট্র তাদের বাছাই করে শিক্ষার সার্বিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করুক, পরিণত হোক মানবসম্পদে। শিক্ষাকে আধুনিক ও যুগোপযোগী বিষয়ভিত্তিক করে মেধাবীদের সাপোর্ট দিলে তারা শুধু দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নেই ভূমিকা রাখবে না, বরং আন্তর্জাতিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশকে এগিয়ে নেবে কাক্সিক্ষত পর্যায়ে। বাকীদের উদ্বোদ্ধ করতে হবে বিশ্ব স্বীকৃত ডিপ্লোমার দিকে। বর্তমানে আমাদের ডিপ্লোমা শিক্ষা খাতে বরাদ্দ জাতীয় শিক্ষা ক্ষেত্রে মাত্র আড়াই শতাংশ সামান্য বেশি। রাষ্ট্র ও সরকারের এই ভূমিকা খুবই উদ্বেগজনক। শিক্ষা দিবসের এই দিনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ রাষ্ট্রের শিক্ষা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের প্রতি আহ্বান জানাতে চাই, দয়া করে জাতিকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করুন। তা না হলে যত ভালো কাজই করুন না কেন, এতে জাতির কোনো লাভ হবে না। জাতির সার্বিক উন্নয়ন করতে হলে মেরুদণ্ডকে প্রথমে শক্ত ভিত্তির ওপর দাঁড় করাতে হবে। ডিপ্লোমা শিক্ষা ব্যবস্থার ত্র“টিপূর্ণ দিকগুলি নিয়ে অবশ্য ভাবতে হবে। সর্বপ্রথম শিক্ষার প্রতি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে। শিক্ষার মূল লক্ষ্য সার্টিফিকেট নয়। উচ্চ গ্রেড মানেই ওজনদার সার্টিফিকেট নয়- কথাটি আমাদের নীতিনির্ধারক, শিক্ষক ও অভিভাবকদের উপলব্ধি করতে হবে। মানুষ যে সুপ্ত প্রতিভা নিয়ে জন্মায়, তার সর্বোচ্চ বিকাশ সাধন হতে হবে সুশিক্ষার মাধ্যমে। শুধু লিখতে আর পড়তে পারার মধ্যে এটা সীমাবদ্ধ রাখলে চলবে না। একজন শিক্ষিত মানুষ সচেষ্ট থাকবে যত বেশি বিষয়ে সম্ভব দক্ষতা অর্জন করতে। শিক্ষিত মানুষ ড্রাইভিং শিখবে, সাঁতার শিখবে, নতুন নতুন ভাষা শিখবে, খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে অংশ নেবে, সমাজকল্যাণমূলক উদ্যোগে সক্রিয় হবে, এমনকি রান্নাটাও ভালোভাবে আয়ত্ত করবে, শিক্ষা সঙ্কট উত্তরণের স্বর্ণচাবির দ্বারউদ্ঘাটন করবে। বিশেষায়িত শিক্ষাকে পুঁজি করে বাংলাদেশে বিভিন্ন খাতে যেসব বিদেশি কাজ করেন, বেতন বাবদ প্রতিবছর তাঁরা ৫০ হাজার কোটি টাকার সমপরিমাণ অর্থ নিয়ে যান। বাংলাদেশের ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বাজেটের পরিমাণ ছিল ২ লাখ ৯৫ হাজার কোটি টাকা। সেই হিসাবমতে এটি বাজেটের প্রায় ১০ শতাংশ। পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি সিইও বা প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তৈরি করছে ভারত। আমাদের কয়েকশ অদক্ষ শ্রমিক মাথার ঘাম পায়ে ফেলে যে অর্থ উপার্জন করেন, বাংলাদেশে অবস্থানরত একজন বিদেশি তার থেকে অনেক বেশি আয় করেন। এর পেছনে রাজনীতি জড়িত নেই আছে সমসাময়িক শিক্ষা। দুইশ’ বছরের ব্রিটিশ গোলামি এবং দুই যুগের পাকিস্তানি গোলামি থেকে আমরা স্বাধীন হয়েছি। দেশ স্বাধীন হওয়ার ৪৫ বছর অতিবাহিত হচ্ছে কিন্তু জাতিকে অকার্যকর রাখার শিক্ষা ভিত্তি অবলম্বন করছি। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, দেশের জন্য শিক্ষা এক ধনের বিনিয়োগ যা মূলত করা হয় ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য। প্রজন্মের ওপর এখন যে জাতি যে বিনিয়োগ করছে, ভবিষ্যৎ উন্নয়নে তারা কার্যকর ভূমিকা রাখার মাধ্যমে উন্নয়নের স্বপ্নযাত্রাকে আরো রঙিন ও সফল করে তুলতে পারে। এ শতকের ডিজিটাল প্রযুক্তির চ্যালেঞ্জ নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারবে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে মধ্যম মেধার ডিপ্লোমা প্রযুক্তি শিক্ষা। সরকার শিক্ষা সম্প্রসারণে অনেকগুলো স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে, যা নিঃসন্দেহে আমাদের আশাবাদী করে। আমাদের শহুরে পরিবেশে শিক্ষা উন্নয়নের পাশাপাশি গ্রামীণ পরিসরে শিক্ষা উন্নয়নে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে উদ্যোগী বর্তমান সরকার। এক্ষেত্রে শিক্ষা উন্নয়ন প্রশ্নেই করা হয়েছে বহুধা সংস্কার উন্নয়ন। শহর-গ্রামাঞ্চলের পাশাপাশি বিভিন্ন স্থানে অবস্থানরত ভাসমান মানুষের শিক্ষা উন্নয়নেও ব্রতী সরকার। শিশুদের মধ্যে শিক্ষার বিস্তার থেকে শিক্ষার উন্নয়নে গৃহীত সহস্রাব্দের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় একটি বড় স্থান অধিকার করে আছে। কিন্তু ডিপ্লোমা শিক্ষা ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা নীতিমালা পরিচালনা ব্যবস্থাপনার ভিত্তির ব্যাপারে যথারীতি উদাসীন। এজন্য যে মহাপরিকল্পনা ও সুনির্দিষ্ট নীতি থাকার প্রয়োজন, আমরা তা থেকে বঞ্চিত। যখন যারা দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়, তারা নিজেদের মতো করে চিন্তা করে এবং শিক্ষায় নিজের দৃষ্টিভঙ্গি টেনে এনে তা বাস্তবায়ন করতে চায়। এ সুযোগে বেনিয়া সাম্রাজ্যবাদীরা আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থাকে দুর্বল করে রাখার চেষ্টা সফল হচ্ছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবে রূপ দিতে সকল পেশা ও পণ্যভিত্তিক অভিন্ন ডিপ্লোমা কোর্সের মেয়াদ (এসএসসি পাশের পর ৪ বছর) ও মানের তৃণমূলে ডিপ্লোমা ইনস্টিটিউট ও ডিপ্লোমা কোর্স চালু করার লক্ষ্যে উপনিবেশিক আমলে গড়া ডিপ্লোমা শিক্ষা নিয়ন্ত্রণকারী ৭টি প্রতিষ্ঠান যথা কারিগরি শিক্ষা বোর্ড, আয়ুর্বেদীয় বোর্ড, হোমিওপ্যাথিক বোর্ড, নার্সিং কাউন্সিল, ফার্মেসি কাউন্সিল, রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ, প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমি থেকে ডিপ্লোমা শিক্ষা কার্যক্রম পৃথক করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে ঢাকা ডিপ্লোমা শিক্ষা বোর্ড, চট্টগ্রাম ডিপ্লোমা শিক্ষা বোর্ড, খুলনা ডিপ্লোমা শিক্ষা বোর্ড, রাজশাহী ডিপ্লোমা শিক্ষা বোর্ড, সিলেট ডিপ্লোমা শিক্ষা বোর্ড, বরিশাল ডিপ্লোমা শিক্ষা বোর্ড, রংপুর ডিপ্লোমা শিক্ষা বোর্ড প্রতিষ্ঠা করার প্রয়োজনীয় নির্দেশনাই দীর্ঘদিনের শিক্ষা দিবস পালনের ভিত্তিমূল হিসাবে সদর্পে আর্বিভূত হবে।

সর্বশেষ সংবাদ