মঙ্গল শোভাযাত্রার ইতিকথা

পোস্ট করা হয়েছে 14/04/2015-10:59am:    আলোর কণ্ঠ ডেস্ক : মঙ্গল শোভাযাত্রা ১৯৮৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইন্সটিটিউটের উদ্যোগে শুরু হয়েছিল। এই শোভাযাত্রা লোকজনের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয় সে বছরই । সকােল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইন্সটিটিউটের শিক্ষক শিক্ষার্থীগন পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে এই শোভাযাত্রা বের করে প্রথম বােরর মতো। শাভাযাায় থােক বিশালকায় চারুকর্ম পােপট, হািত ও ঘোড়াসহ বিভিন্ন সাজসজ্জা থােক বাদ্যযন্ত্র ও নৃত্য ৷ পহেলা বৈশাখ উদযাপন উপলক্ষ থেকেই জনিয়তা পেয়ে যায়। তারপরের বছরও চারুকলার সামনে থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়। তবু সংবাদপত্রের খবর অনুযায়ী জানা যায়, সে বছর চারুশিল্পী সংসদ নববর্ষের সকােল চারুকলা ইন্সটিটিউট থেকে বর্ণাঢ্য আনন্দ মিছিল বের করে। শুরু থেকেই চারুকলার শোভাযাত্রাটির নাম মঙ্গল শোভাযাত্রা ছিল না। নববর্ষ উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা আয়োজকদের একজন মাহবুব জামাল শামীম এমনটাই বলেছন। তিনি জানান, তখন এর নাম ছিল বর্ষবরণ আনন্দ শোভাযাত্রা। সেই সময়ের সংবাদপত্রের খবর থেকেও এমনটানিশ্চিত হওয়া যায়। সংবাদপত্র থেকে যতটা ধারণা পাওয়া যায়, ১৯৯৬ সাল থেকে চারুকলার এই আনন্দ শোভাযাত্রা মুল শোভাযাত্রা হিসেবে নাম লাভ করে। তবে বর্ষবরণ উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা চারুকলায় ১৯৮৯ সােল হলেও এর ইতিহাস আরও কয়েক বছরের পুরােনা। ১৯৮৬ সােল চারুপীঠ নােমর একটি প্রতিষ্ঠান যশোরে প্রথমবােরর মতো নববর্ষ উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রার আয়াজন করে। যশোরের সেই শোভাযাত্রায় ছিল পােপট, বােঘর প্রতিকৃিত, পুরােনা বাদ্যসহ আরো অনেক শিল্পকম পরের বছরই যশোরে সেই শোভাযাত্রা আলোড়ন তৈরি করে। যশোরের শোভাযাত্রার উদ্যোক্তাদের একজন মাহবুব জামাল শামীম মাস্টার্লিং ডিগ্রি নিতে ঢাকার চারুকলায় চলে আসেন। পরবতীেত যশোরের শোভাযাত্রার আদলেই চারুকলায় চারুকলা থেকে হয় বর্ষবরণ আনন্দ শোভযাত্রা তথ্যসুত্র: উইকিপিডিয়া

সর্বশেষ সংবাদ