কাকড়া বিপজ্জনক প্রাণী

পোস্ট করা হয়েছে 11/04/2015-11:19am:    আলোর কণ্ঠ ডেস্ক : পৃথিবীতে সকল প্রাণীরই যে মানুষের উপকারে আসে তা নয়। এসব প্রাণী অনেক সময় একজন মানুষের প্রাণনাশের হুমকি হয়ে উঠে। এ প্রাণীর নিঃসৃত এক ফোঁটা রস অন্যান্য হিংস্র জন্তুর তুলনায় অনেক মারাত্মক। মারাত্মক ১০টি বিপজ্জনক প্রাণীগুলো নিয়ে আলোচনা -- - সি ওয়্যাসপ্স: এরা জেলিফিশের একটি প্রজাতি৷ কয়েক স্তরের কর্ষিকা এবং লক্ষ লক্ষ স্নিডোসাইট রয়েছে এদের৷ কেউ যদি এটা স্পর্শ করে তাহলে এই কর্ষিকার মাধ্যমে কয়েক লাখ সূক্ষ্ম বিষাক্ত হুল ফুটিয়ে দেয় দেহে৷ যেখানে হুল ফোটানো হয় সেখানে প্রচণ্ড ব্যথা শুরু হয়৷ তাড়াতাড়ি ব্যবস্থা না নিলে ৩ মিনিটের মধ্যে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়বে ঐ ব্যক্তি৷ সি ওয়্যাসপ্স-এর লেজে এ পরিমাণ বিষ থাকে যে তাতে ২৫০ জন মানুষ মারা যেতে পারে৷- - - বিষাক্ত ব্যাং: এই উজ্জ্বল হলুদ রংয়ের প্রাণীটি বিশ্বের সবচেয়ে বিষাক্ত ব্যাং৷ এরা দক্ষিণ ও মধ্য অ্যামেরিকায় পাওয়া যায়৷ এরা একবারে দশজন মানুষকে মেরে ফেলার ক্ষমতা রাখে৷ রিফ ফিশ: ভারত ও প্রশান্ত মহাসাগরে সাগরের তলদেশে পাথরের মধ্যে এদের দেখতে পাওয়া যায়৷ এখানে এরা পাথরের সাথে এমনভাবে মিশে থাকে চেনাই যায় না৷ এই মাছটি যখন কাউকে আক্রমণ করে তখন কাঁটা ফুটিয়ে দেয়, এর বিষের কারণে রক্তে নিম্নচাপ, ভেনট্রিকুলার ফাইব্রিলেশন এবং পক্ষাঘাত হয়, যা পরে মৃত্যুর দিকে ধাবিত করে৷- - - ইনল্যান্ড তাইপান: এই সাপের বিষ ভারতের গোখরো সাপের বিষের চেয়ে ৫০ গুন বেশি শক্তিশালী৷ এ কারণে অস্ট্রেলিয়ার ল্যান্ড স্নেক সবচেয়ে বিষধর হিসেবে পরিচিত৷ ইনল্যান্ড তাইপান ২৩০ বয়স্ক ব্যক্তিকে ধরাশায়ী করতে পারে৷ তবে স্বস্তির কথা হলো এই সাপের আবাস প্রত্যন্ত এলাকায় যেখানে মানুষের চলাচল কম।- - - সি স্নেকস ডুবোয়া: সামুদ্রিক সাপের মধ্যে এটি সবচেয়ে বিষাক্ত৷ এরা ছোবল দিলে কোথায় ছোবল দিয়েছে এবং কখন দিয়েছে সেটা টেরই পাওয়া যায়না৷ কেবল আধঘণ্টা পরে সাপের দংশের শিকার ঐ ব্যক্তির গলা শুকিয়ে যায়, এরপর সে তার হাত পা নাড়াতে পারে না৷ ধীরে ধীরে পুরো শরীর অচল হয়ে শ্বাসপ্রশ্বাস বন্ধ হয়ে যায়৷- - - সামুদ্রিক শামুক কোন: সামুদ্রিক শামুকের খোলের বর্ণ বৈচিত্রের কারণে ব্যাপক চাহিদা৷ কিন্তু এই যে শামুকটিকে দেখছেন এর সৌন্দর্য্যের পেছনে আছে মারাত্মক বিষ ভাণ্ডার৷ সেই বিষের এক ফোঁটায় ২০ জন মানুষ প্রাণ হারাতে পারে৷- - - ব্লু রিং অক্টোপাস: সাধারণ পরিবেশে এটি হালকা বাদামী রংয়ের৷ কিন্তু যখন আগ্রাসী হয়ে ওঠে তখন এর গায়ে উজ্জ্বল নীল রংয়ের রিঙ দেখা যায়৷ যখন একটি কামড়ায় তখন এর বিষাক্ত লালা স্নায়ুতন্ত্রকে আঘাত করে৷ কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই মানুষটি মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়ে৷ লাবা সিডনি: অস্ট্রেলিয়ার সিডনি থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরে এই মাকড়সাদের পাওয়া যায়৷ এ ধরনের মাকড়সার বিষ মাংসপেশী ও শাসতন্ত্রকে অচল করে দেয়৷ আর বিষ যদি হৃদযন্ত্রে ঢুকে পড়ে তাহলে নির্ঘাত মৃত্যু৷- - - প্রটোপ্যালিথোয়া: এটি এক ধরনের সামুদ্রিক ফুল, যা দেখতে অনেকটা শামুকের খোলের মত৷ এই ফুল থেকে নিঃসৃত ০.০২ মিলিগ্রাম বিষ ৭০ কেজি ওজনের মানুষকে মেরে ফেলার পক্ষে যথেষ্ট৷ হাওয়াই-এর আদিবাসীরা এই বিষ শিকারের জন্য বল্লমের মাথায় লাগায়৷- - - ডেথস্টকার কাকড়া বিছা: সবধরনের কাকড়া বিছা মানুষের জন্য হানিকর নয়৷ তুরস্ক, আরব উপত্যকা এবং উত্তর আফ্রিকার কিছু অঞ্চলে এদের বসবাস৷ পটাসিয়াম সায়ানাইডের চেয়ে ১৮ গুণ বেশি শক্তিশালী এই কাকড়া বিছা’র বিষ৷

সর্বশেষ সংবাদ
এবার ঘরে বসে তৈরি করুন জিভে জল আনা কাঁচাআমের জুস সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সফল অস্ত্রোপচার, দোয়া কামনা চট্টগ্রামের -১৬ বাঁশখালীর এমপিসহ পরিবারের ১১ সদস্য করোনা আক্রান্ত সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের শারীরিক অবস্থার অবনতি দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্র্ধ্বগতিতে জনদুর্ভোগ এখন চরমে আজ বছরের দ্বিতীয় চন্দ্রগ্রহণ পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর হওয়ার নি‌র্দেশ আইজিপি’র  তথ‌্যমন্ত্রী  ড. হাছান মাহমুদ এমপি র  শুভ জন্মদিনে শুভ কামনা।  তথ‌্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি মহোদয়ের শুভ জন্মদিন আজ করোনায় পোশাক কারখানায় ৫৫ শতাংশ কাজ কমে গেছে: রুবানা হক