পুষ্টিবিজ্ঞানী ড. পূরবী বসু

পোস্ট করা হয়েছে 28/03/2015-10:58am:    আলোর কণ্ঠ ডেস্ক :বিক্রমপুরের মেয়ে ড. পূরবী বসু । মুন্সীগঞ্জ জেলার বিক্রমপুরে বাল্যকাল ও স্কুল জীবনের স্মৃতিঘেরা এই শহর। ১৯৬৪ সালে স্থানীয় এভিজেএম গার্লস হাইস্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষায় পাস করে হরগঙ্গা কলেজ । পরবর্তীতে ঢাকার বদরুন্নেসা কলেজ থেকে এইচএসসি। মুন্সীগঞ্জ শহরের এক জনপ্রিয় চিকিৎসকের কন্যা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শেষ করেছেন ফার্মেসিতে অনার্সসহ স্নাতক পর্যায়ের শিক্ষা। তারপর বিদেশ যাত্রা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মেডিক্যাল কলেজ অভ পেনসিলভ্যানিয়া ও ইউনিভার্সিটি অভ মিসৌরি থেকে লাভ করেছেন যথাক্রমে প্রাণ-রসায়নে এমএস ও পুষ্টিবিজ্ঞানে পিএইচডি। বিজ্ঞানচর্চা তার পেশা। নিউইয়র্কের মেমেরিয়াল স্লোন কেটারিং ক্যান্সার সেন্টারে গবেষণা ও কর্নেল ইউনিভার্সিটিতে অধ্যাপনায় কেটেছে বেশ কিছুকাল। অনেক গবেষণা-প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে সারা বিশ্বের নানা নামি জার্নালে। দীর্ঘ বিদেশবাসের পর দেশে ফিরে আসেন এক খ্যাতনামা ঔষধ প্রস্তুত প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদে। দেশের সর্ববৃহৎ বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক-এ স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালকও ছিলেন। প্রথিতযশা লেখক পূরবী বসু বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী। স্মৃতি বিজড়িত শহরে বিচরণের এক ফাঁকে তার সাহিত্য জগতে পা রাখা। পূরবী বসুর আরেক পরিচয় হল তিনি খ্যাতিমান লেখক জ্যোতিপ্রকাশ দত্তের স্ত্রী।পূরবী বসুর সাহিত্যকর্ম বিস্তর। ছোট গল্প ও কলাম লিখেই বেশি পরিচিতি। এরই মাঝে নারী নিয়ে লিখেছেন গবেষণাধর্মী বই। সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে পূরবী বসুর কলামগুলো খুবই জনপ্রিয়। পূরবী বসুর প্রকাশিত বই এর মাঝে ‘পূরবী বসুর গল্প’ প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯৮৯ সালে। তারপর পর্যায়ক্রমে আজন্ম পরবাসী, রাধা আজ রাঁধবে না, নারী ভাবনা, সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী গল্প, জোছনা করেছে আড়িসহ গবেষণাধর্মী ‘নোবেল বিজয়ী নারী’ নিয়ে তার বই উল্লেখযোগ্য। পূরবী বসু ৬০ দশকের মাঝামাঝি থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী অবস্থায় পত্র-পত্রিকায় লেখালেখি শুরু করেন। লেখার অনুপ্রেরণা সর্বপ্রথম আমার বাবার কাছ থেকে। তিনি মুন্সীগঞ্জের তৎকালীন জনপ্রিয় ডাক্তার ছিলেন। তরণী রঞ্জন বসু। পরবর্তীতে আমার স্বামী, প্রখ্যাত কথা সাহিত্যিক জ্যোতিপ্রকাশ দত্তের কাছ থেকে। আর সাহিত্যপাতার সম্পাদকদের কাছ থেকেও উৎসাহ পেয়েছি। বিশেষ করে সম্পাদক আবুল হাসনাতের নাম উল্লেখযোগ্য। সচেতনতা সম্পর্কিত বলার আছে। অনেক পড়তে হবে- দেশী ও বিদেশী সাহিত্য। আমি নিজেও যথেষ্ট পড়াশোনা করি। লেখার মান উন্নয়নে এক একটি লেখাকে ঘষে মেজে পরিশীলিত করার চেষ্টা করা দরকার, বার বার দরকার। কম্পিউটারে লিখতে শিখলে এটা সহজতর হয়। সমালোচনা সইবার ও গ্রহণ করার উদারতা থাকা দরকার। আর দরকার তাড়াহুড়া করে বই প্রকাশ করার প্রবণতা রোধ করা। সাহিত্য আমাকে জীবনের একঘেঁয়েমী থেকে মুক্তি দেয়। আমার নান্দনিক বোধ উজ্জীবিত করে। আমাকে চিন্তার খোরাক যোগায়।

সর্বশেষ সংবাদ
এবার ঘরে বসে তৈরি করুন জিভে জল আনা কাঁচাআমের জুস সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের সফল অস্ত্রোপচার, দোয়া কামনা চট্টগ্রামের -১৬ বাঁশখালীর এমপিসহ পরিবারের ১১ সদস্য করোনা আক্রান্ত সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের শারীরিক অবস্থার অবনতি দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্র্ধ্বগতিতে জনদুর্ভোগ এখন চরমে আজ বছরের দ্বিতীয় চন্দ্রগ্রহণ পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর হওয়ার নি‌র্দেশ আইজিপি’র  তথ‌্যমন্ত্রী  ড. হাছান মাহমুদ এমপি র  শুভ জন্মদিনে শুভ কামনা।  তথ‌্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এমপি মহোদয়ের শুভ জন্মদিন আজ করোনায় পোশাক কারখানায় ৫৫ শতাংশ কাজ কমে গেছে: রুবানা হক