সন্ত্রাসীদের সঙ্গে আপস করে সংলাপ নয়: আবুল বারাকাত

পোস্ট করা হয়েছে 03/03/2015-05:49pm:    যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে দেশে সহিংসতা চলানো হচ্ছে মন্তব্য করে অর্থনীতিবিদ ড. আবুল বারাকাত বলেন, দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে আলোচনা হলে তা হবে জাতির সঙ্গে অন্যায় করা। কারণ বিএনপি-জামায়াতই চলমান এই আন্দোলন যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষার আন্দোলন। তাই এই অবস্থায় কোনো আলোচনা হতে পারে না। সাম্প্রতিক সময়ে সহিংসতার রাজনীতি এবং এ থেকে উত্তরণের উপায় প্রসঙ্গে গতকাল মঙ্গলবার এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন তিনি। দেশের চলমান সহিংস পরিস্থিতির জন্য জামায়াতকে দায়ী করে আবুল বারাকাত বলেন, জামায়াতকে রাজনৈতিকভাবে নিষিদ্ধ না করলে এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ সম্ভব নয়। তাই যত দ্রুত সম্ভব জামায়াতকে নিষিদ্ধ করতে হবে। তিনি বলেন, নাশকতার অর্থের জোগানদাতা জামায়াতের সব আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে বাজেয়াপ্ত করে জাতীয়করণ করতে হবে। এই অর্থনীতিবিদ বলেন, সারা দেশে যারা সহিংস কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে তাদের তালিকা করে গণমাধ্যমে প্রকাশ করতে হবে। একই সঙ্গে দেশের প্রত্যন্ত এলাকা থেকে শুরু করে রাজধানী পর্যন্ত মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সব সামাজিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক শক্তিকে একত্রিত হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। সন্ত্রাস-নাশকতায় যারা লিপ্ত তাদের বিরুদ্ধে সরকারকে আরো কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। তিনি বলেন, যে ভয়াবহ সহিংসতা-নাশকতা মানুষের জীবন কেড়ে নেয়, পুড়িয়ে মানুষ মারে, দেশের নিরীহ সাধারণ জনগণের মনে গভীর ভীতি সঞ্চার করে, সাধারণ মানুষের জীবিকা নির্বাহের উপায় ধ্বংস করে এবং অর্থনীতিতে ধস নামানোর লক্ষ্যে নিয়োজিত তা কোনো অর্থেই গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড হতে পারে না। এই সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের পেছনে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকানোর অশুভ তৎপরতাও রয়েছে বলে মনে করেন ড. বারাকাত। তিনি বলেন, এর মূল উৎপাটনের জন্য যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দ্রুত সম্পন্ন করে সব রায় কার্যকর করা জরুরি। সব ধরনের ষড়যন্ত্র, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনের মাধ্যমে এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমুন্নত রেখে দেশে সুস্থ টেকসই গঠনতন্ত্রের বিকাশে প্রত্যেককে নিজ নিজ অবস্থান থেকে সম্ভাব্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাতে হবে।

সর্বশেষ সংবাদ