মৌসুমের শুরুতেই আমনের দাম কমেছে ৩৩%

পোস্ট করা হয়েছে 28/11/2018-09:32pm:    এবার আমনের ফলন ভাল হলেও তেমন দাম পাচ্ছে না কৃষক। ইতোমধ্যে ফসল কেটে ঘরে তুলছে তারা। তবে ভাল দাম না পাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন তারা। এরই মধ্যে কোনো কোনো স্থানে ৩৩ শতাংশ পর্যন্তও দাম কমেছে আমন ধানের। এনিয়ে সংশয়ে রয়েছে কৃষকরা। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গতবছর দাম নিয়ে কোন প্রশ্ন না থাকলেও এবার কৃষকদের আমন আবাদে বেশ আগ্রহ নেয়। ধান বিক্রি শুরুতেই প্রতি মণ আমনের দাম নেমে এসেছে ৬০০-৭০০ টাকায়। যেখানে আগের মৌসুমের শুরুতে এর দাম ছিল মণপ্রতি ৮৫০ থেকে ১ হাজার ৫০ টাকা। ফসল কাটার মৌসুম শুরু হতে না হতে প্রতি মণ আমনের দাম কমেছে ২৫০-৩৫০ টাকা পর্যন্ত। অর্থাৎ মৌসুমের শুরুতেই মানভেদে দাম কমেছে ৩০-৩৩ শতাংশ। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দু-তিন সপ্তাহের মধ্যে বাজারে আমনের দাম নির্ধারণকারী গুটি স্বর্ণা বা স্বর্ণা ও বিনা ধানের পাশাপাশি ব্রির মেগা ভ্যারাইটি উঠতে শুরু করলে দাম আরো কমে যাবে। এছাড়া কয়েক সপ্তাহের মধ্যে বাজারে বরিশাল, কুমিল্লা বা সিলেট বিভাগে দেরিতে আবাদকৃত ধানের সরবরাহ বাড়তে শুরু করবে। সে সময় এ নিম্নমুখিতা আরো জোরালো হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এবিষয়ে যশোরের শার্শা উপজেলার কৃষক সাহেব আলী বলেন, একজন কৃষকের প্রতি বিঘায় (৩৩ শতাংশ) জমি তৈরি, সার, আবাদ, কীটনাশক, কাটা ও মাড়াইয়ে খরচ হয় ৮-১০ হাজার টাকা। এর সঙ্গে জমি ভাড়া (বর্গা) বাবদ আরো ৫-৬ হাজার টাকা ব্যয় করতে হয়। গত বছরের শেষ পর্যন্ত প্রতি মণ ধান ৯০০ টাকায় বিক্রি করতে পেরেছি। অন্যদিকে এবার বাজারে ধান ওঠা শুরু হতে না হতে তা নেমে এসেছে মাত্র ৬০০ টাকায়। গত বছর মৌসুমের শুরুতে আমরা হাজার টাকার বেশি দামে ধান বিক্রি করতে পেরেছিলাম। এভাবে দাম কমলে কৃষকরা ধান চাষে আগ্রহ হারাবেন। আমনের দাম না পেলে বোরো ধান আবাদেও আগ্রহ হারাবেন কৃষক।

সর্বশেষ সংবাদ