সুরের কোকিল শ্রী গনেশ চন্দ্র দাশ

পোস্ট করা হয়েছে 07/02/2016-08:49pm:    রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ছাত্র-ছাত্রীর কাছে এক পরিচিত নাম শ্রী গনেশ চন্দ্র দাশ তার বাড়ি রাজশাহীর পুঠিয়ার দুদুর মোড়ে।তিন ছেলে- মেয়ের জনক শ্রী গনেশ চন্দ্র দাশ । গত ৩০ বছর ধরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়েল এই ক্যাম্পাসে বাঁসি বিক্রয় করে আসছে । তবে ইতোমধ্যেই সে হারিয়েছে তার এক মাত্র মেয়েকে । ক্যাম্পাসে বাঁসি বিক্রি করেই সে তার জীবিকা নির্বাহ করে আসছে গত ৩০ বছর ধরে ।
তবে দুঃখের বিষয় বাঁশি বিক্রি করে যে অর্থ তিনি উপাজন করেন তা দিয়ে তার সংসার চালানো রীতিমত দূঃসাধ্য হয়ে উঠেছে । টাকার অভাবে সে লেখা পড়া করাতে পাচ্ছেন না তার সন্তানদের । তবুও ছাড়ছে না তার এই পেশাকে ।
সংসানে অভাব অনাটন থাকলেও কেন তিনি এই পেশাকে ছাড়ছেন না এই কথা জানতে চাইলে তিনি জানান, এই ক্যাম্পাসের আলো বাতাস তার নিঃশ্বাসের সাথে মিশে গেছে । তাই এই ক্যাম্পাস ছাড়া তার আর কোথাও ভাল লাগে না । তিনি আরও বলেন, এই ক্যাম্পাসে ছেলে মেয়েরা তার সন্তানের মত । তাদের এই দিন না দেখরে তার কিছুই ভাল লাগে না । প্রতিদিন সকালে ছাত্র-ছাত্রীরা ক্যাম্পাসে আসার আগেই তিনি ক্যাম্পসে হাজির হয় । তার বিভিন্ন রকম বাঁসি নিয়ে বসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরীর সামনে । সেখানে তার বাঁসিতে তোলেন নানা রকম জনপ্রিয় গানেন সুর । তার বাঁসির সুরে মুদ্ধ হয় তাকিয়ে থাকে ছাত্র-ছাত্র,পথচারী, শিক্ষক-কর্মচারী সবাই আর তাকিয়ে থাকে তার দিকে সবাই অবাক দৃষ্টিতে । যেন কিছু মূহর্তের জন্য সবাই অজানায় হারিয়ে যায় । কেউ কেউ আবার তার কাছে শেখে কি ভাবে বাসিঁ বাজাতে হয় । তিনিও সবাইকে বিনা দ্বিধায় শিখিয়ে দেন বাঁসি বাজানো নানা রকম কৌশল । অনেকে তার কাছ থেকে বাঁসি বাজাতে শিখে বেশ আনন্দিত ।
তবে গনেশ চন্দ্রের বাঁসি আর আগের মত বিক্রি হয় না। তিনি তার এই পেশাকে অবলম্বন করে তার সীমিত আয় দিয়ে সংসার চালাতে রীতিমত হিমশিম খাচ্ছে ।
সাজু আহমেদ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

সর্বশেষ সংবাদ