রাবি ছুটির সময় হল খোলা রাখার দাবিতে ছাত্রলীগের প্রশাসন ভবন ঘেরাও

পোস্ট করা হয়েছে 27/12/2015-10:53pm:    রাবি সংবাদদাতা:
শীতকালীন ছুটি সহ সকল ছুটিতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) সকল আবাসিক হলসমূহ খোলা রাখার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করে ৫ ঘন্টা ধরে প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।
রোববার বেলা ১১ টার দিকে সকল আবাসিক হল থেকে ছাত্রলীগের কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে ক্যাম্পাসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে প্রশাসন ভবনের সামনে এ অবস্থান কর্মসূচি নেয়।বিকাল ৪ টা পর্যন্ত তারা প্রশাসন সামনে অবস্থান করেন। তবে সকাল থেকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এ কর্মসূচি পালন করলেও এখনো এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি। এদিকে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবে বলে জানিয়েছে ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান রানা।
এসময় বিশ্ববিদ্যালয় ভিসি, প্রো-ভিসি, কোষাধ্যক্ষ, রেজিষ্ট্রার, ছাত্র উপদেষ্টা, জনসংযোগ দপপ্তরের পশাসক ও প্রক্টরসহ প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীররা ভবনেই আটকা পড়ে আছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও ভবনের গেটে তালা বদ্ধ করে আন্দোলন করায় বিভাগের ফরম পুরণসহ নানাবিধ কাজ করতে না পরায় বিপাকে পড়েছে অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা। ফলে শিক্ষার্থীদের কাজ না করেই ফিরে যেতে দেখা গেছে।
রাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান রানার উপস্থিতিতে এসময় অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য সাইদুল ইসলাম রুবেল, সাংগঠনিক সম্পাদক কাউসার আহামেদ কৌশিক, হবিবুর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মামুনসহ প্রমূখ নেতাকর্মীরা।
এসময় তারা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যাতে বিসিএসসহ অন্যান্য প্রতিযোগিতামুলক পরীক্ষায় ভালো করতে পারে, সে বিষয়ে কর্তৃপক্ষ কোনো রকম সহযোগিতার পরিবর্তে শীতকালীন ছুটির অজুহাতে হল খালি করে পরীক্ষার্থীদের বিপাকে ফেলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বাংলাদেশের অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ে কখনো হল বন্ধ রাখা হয় না। অথচ আমাদের এখানে রাজনৈতিক অবস্থা ভালো থাকা সত্বেও প্রতি বছর হল বন্ধা রাখা হয়। যেখানে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা ছুটির সময় হলে অবস্থান করে বাড়তি পড়ালেখা করে। আর তখন আমাদেরকে অনিচ্ছা সত্বেও বাড়ির দিকে রওনা দিতে হয়। সামনে ৮ তারিখে বিসিএস পরীক্ষা। এ অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ কি বুঝে এ ছুটি ঘোষণা করলো তা আমাদের বুঝে আসে না। তাই যদি আমাদের দাবি মানা না হয় তাহলে আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাবে’।
এসময় অন্যান্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, রাবি ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মেহেদী হাসান, আতিকুর রহমান সুমন, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান পলাশ, সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুজ্জামান ইমনসহ বিভিন্ন হলের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মিজানউদ্দিনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ‘ সার্বিক পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে সিন্ডিকেট সভায় এ ছুটি কার্যকর করা হয়েছে। এছাড়াও বিসিএস পরীক্ষার জন্য দুইদিন আগেই হল খুলে দেয়া হবে। তার পরেও তারা কি জন্য আন্দোলন করছে আমি বুঝতে পারিছ না’। উল্লেখ্য, গতকাল শনিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটে সভায় ২ থেকে ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত শীতকালিন ছুটি নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে আবাসিক হলসমূহ ৩১ তারিখ বেলা ১২ টা থেকে ৬ তারিখ সকাল ৯ টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। আর প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ থাকবে ২ থেকে ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত।’
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

সর্বশেষ সংবাদ