টিউলিপের প্রচারণায় বঙ্গবন্ধুর নাম

পোস্ট করা হয়েছে 09/05/2015-10:54am:    www.alorkantho24.com ঢাকা অফিসঃ ব্রিটেনের পার্লামেন্ট নির্বাচনে লন্ডনের তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ আসন হ্যাম্পট্যাড অ্যান্ড কিলবার্নে লেবার দলের প্রার্থী হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক। তার নির্বাচনী প্রচারে যুক্তরাজ্যে রাজনীতিতেও বারবার উচ্চারিত হচ্ছে বাংলাদেশের স্থপতি শেখ মুজিবের নাম। আগামী ৭ মে ব্রিটেনের এই নির্বাচনে ভোটগ্রহণ হবে। টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার কন্যা। লন্ডনের মিচামে জন্ম নেওয়া টিউলিপ কিংস কলেজ থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। ২০১০ সালে স্থানীয় ক্যামডেনে কাউন্সিলর নির্বাচিত হন তিনি। লেবার দলীয় এমপি গ্লেন্ডা জ্যাকসন বার্ধক্যজনিত কারণে অবসর নেওয়ার ঘোষণা দিলে স্থানীয় লেবার সদস্যদের ভোটে টিউলিপ এই আসনে এমপি পদে দাঁড়ানোর মনোনয়ন পান। ব্রিটেনের প্রভাবশালী পত্রিকা ডেইলি ইন্ডিপেনডেন্টে সিমন অসবর্ণ নামের প্রতিবেদক টিউলিপ সিদ্দিককে নিয়ে তার এক প্রতিবেদনে তুলে আনেন বাংলাদেশের রাজনীতিতে মুজিব-পরিবারের দীর্ঘ ৪০ বছরের ইতিহাস এবং ১৯৭৫-এ এই পরিবারে ঘটে যাওয়া মর্মস্পর্শী বিয়োগান্ত ঘটনাপ্রবাহ। ওই প্রতিবেদনে উঠে আসে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম, তার রাজনীতি ও সংগ্রামের ইতিহাস। টিউলিপ সিদ্দিক তার রাজনীতিতে আসা নিয়ে মা শেখ রেহানার ভয়ের কথাও তুলে ধরেন সিমনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে। তিনি বলেন, ‘১৯৭৫ সালে সবাইকে হারিয়ে আমার মা আমাদের তিন ভাইবোনকে নিয়ে উদ্বিগ্ন ছিলেন। আমার খালা শেখ হাসিনাকে বাংলাদেশে ১৯ বার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। তাই তিনি আমার রাজনীতি নিয়ে খুশি ছিলেন না। তিনি সবসময় খুব উদ্বিগ্ন থাকতেন আমি কোথায় যাচ্ছি, কেমন আছি। তাকে বুঝাতে হয়েছে, ব্রিটেনের রাজনীতি এমন না যে, হঠাৎ করে কেউ এসে আমাকে খুন করে যাবে।’ সিমন তার প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করেন, টিউলিপ হয়তো তার বিজয় ছিনিয়ে আনতে সক্ষম হবেন। কিন্তু সেটা কঠিন সংগ্রাম করে অর্জন করতে হবে। ভিআইপি মন্ত্রী পরিবেষ্টিত এই এলাকায় তিনি কাউন্সিলর হিসেবে বিজয়ী হয়ে কাজ করেছেন এবং ২০১০ সালের নির্বাচনে তিনি তার সমর্থকদের এবং তার ওয়েবসাইটে নিজের রাজনৈতিক উত্তরাধিকার বিষয়ে সমর্থকদের নীরব থাকতে বলেছিলেন। কিন্তু ২০১৩ সালে তিনি যখন লেবার প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হন তিনি বলেন, ‘আমি জানি জনগণ আবারো আমার রাজনৈতিক উত্তরাধিকার নিয়ে আলোচনা করবেন।’ টিউলিপ জানান, বাংলাদেশের রাজনীতি তাকে আকর্ষণ করে না। তিনি শেখ হাসিনার নির্বাচনী প্রচারণায় যোগ দিয়েছিলেন বলেও জানান। শেখ হাসিনা এবং নিজের নির্বাচনী প্রচারণার তুলনা করে টিউলিপ জানান, শেখ হাসিনার সংগ্রাম তিনি দেখেছেন। তার মতে যুক্তরাজ্যের সংস্কৃতি বাংলাদেশের চেয়ে অন্য রকম। টিউলিপ বলেন, এমন অনেক বাঙালিকে আমি পেয়েছি যারা এসে জিজ্ঞাসা করেন, ‘ও আপনি তো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাগ্নি? দেশে আমার ভাড়ার সমস্যাটা সমাধান করে দিতে পারবেন।’ সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশের রাজনীতির প্রসঙ্গ থেকে শুরু করে টিউলিপের জন্ম, বেড়ে ওঠা, পড়াশুনা এসব বিষয়ও তুলে আনেন সিমন। আর এই নতুন প্রজন্মের হাত ধরে ব্রিটেন পার্লামেন্টের নির্বাচনী আলোচনায় উঠে এসেছে বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবনের কথা।

সর্বশেষ সংবাদ