প্রবাসী বাংলাদেশীদের সিআইপি কার্ডের বাড়ানো হচ্ছে

পোস্ট করা হয়েছে 21/03/2015-11:03am:    আলোর কণ্ঠ ডেস্ক : সরকার প্রবাসী বাংলাদেশীদের দেশের অর্থনীতিতে আরও উৎসাহিত করতে বাণিজ্যিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বা সিআইপি (এনআরবি) নির্বাচন সংক্রান্ত নীতিমালা সংশোধনের উদ্যোগ নিয়েছে ।মনোনয়নের যোগ্যতা শিথিল করে সংশোধিত নীতিমালায় সিআইপি কার্ডের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে । জানা গেছে, সিআইপি (এনআরবি) নীতিমালা সংশোধনের জন্য সম্প্রতি একটি কমিটি গঠন করা হয়। এতে সরকারের সব দফতরের প্রতিনিধিরা ছিলেন। কমিটির বৈঠকে নীতিমালার একটি সংশোধিত খসড়া তৈরি করা হয়েছে। এখন মন্ত্রিপরিষদে অনুমোদনের জন্য এটি পাঠানো হবে। অনুমোদন পাওয়ার পর তা গেজেট আকারে জারি করা হবে। বিদেশ থেকে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স পাঠিয়ে যারা দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে সহায়তা করছেন তাদের সিআইপি (এনআরবি) হিসেবে পুরস্কৃত করা হয়। স্বীকৃতিস্বরূপ প্রত্যেক প্রবাসীকে সিআইপি কার্ড দেওয়া হয়। সংশোধিত নীতিমালা অনুযায়ী তিন ক্যাটাগরিতে ৯০ জন প্রবাসী বাংলাদেশীকে সিআইপি কার্ড দেওয়া হবে। এর মধ্যে শিল্পক্ষেত্রে সরাসরি বিনিয়োগকারী প্রবাসী ২০ জন বাংলাদেশী, বৈধ চ্যানেলে সর্বাধিক বৈদেশিক মুদ্রা পাঠানো ৫০ জন এবং বিদেশে বাংলাদেশী পণ্যের আমদানিকারক প্রবাসী বাংলাদেশী ২০ জন সিআইপি কার্ড পাবেন। বর্তমানে শিল্পক্ষেত্রে সরাসরি বিনিয়োগকারী প্রবাসী ১০ জন, বৈধ চ্যানেলে সর্বাধিক বৈদেশিক মুদ্রা পাঠানো ১০ জন এবং বিদেশে বাংলাদেশী পণ্যের আমদানিকারক প্রবাসী বাংলাদেশী ৫ জনকে সিআইপি কার্ড দেওয়া হয়। এ ছাড়া মনোনয়নের জন্য শিল্পক্ষেত্রে সরাসরি বিনিয়োগকারীদের যোগ্যতাও কমানো হচ্ছে। ৫ লাখ ডলারের পরিবর্তে ৩ লাখ ডলার দেশে বিনিয়োগ করলেই যেকোনো প্রবাসী সিআইপি কার্ড পাবেন। রেমিট্যান্স পাঠানো প্রবাসীদের ক্ষেত্রে ব্যাংকিং চ্যানেল বাদ দিয়ে বৈধ চ্যানেলে দেড় লাখ ডলার পাঠালেই সিআইপির জন্য বিবেচিত হবেন ওই প্রবাসী।

সর্বশেষ সংবাদ